শরণার্থী ও অভিবাসন নিয়ে বাংলাদেশ-যুক্তরাজ্য আলোচনা

0

এফএনএস: আফগানিস্তানের চলমান ঘটনা নিয়ে আলোচনা করেছে বাংলাদেশ ও যুক্তরাজ্য। দুই দেশের মধ্যে চতুর্থ কৌশলগত সংলাপে পররাষ্ট্র সচিব মাসুদ বিন মোমেন ও যুক্তরাজ্যের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের আন্ডার-সেক্রেটারি ফিলিপ বারটনের মধ্যে গত বৃহস্পতিবার লন্ডনে বিষয়টি নিয়ে আলোচনা হয়। এ ছাড়াও রোহিঙ্গা সমস্যার টেকসই সমাধান নিয়ে আঞ্চলিক ও আন্তর্জাতিক গুরুত্বপূর্ণ দেশগুলোর সম্পৃক্ত হওয়ার ক্ষেত্রে দুইদেশ একমত হয়েছে বলেও জানা গেছে। পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় থেকে পাঠানো এক বিজ্ঞপ্তিতে আরও জানানো হয়, দ্বিপক্ষীয়, আঞ্চলিক ও বৈশ্বিক বিষয় নিয়ে বাংলাদেশ-যুক্তরাজ্যের মধ্যে আরও আলোচনার প্রয়োজন আছে বলে বৈঠকে মত প্রকাশ করেন ফিলিপ বারটন।

আঞ্চলিক স্থিতিশীলতা: সিরিয়া ও আফগানিস্তানে যুদ্ধ শুরুর পর লাখ লাখ শরণার্থী নিজ দেশ থেকে পালিয়ে ইউরোপ ও আমেরিকার দেশগুলোতে আশ্রয় নিয়েছিল, এখনও নিচ্ছে। কিন্তু মিয়ানমার থেকে পালিয়ে আসা রোহিঙ্গারা এখনও বাংলাদেশেই আছে। এ প্রেক্ষাপটে এ অঞ্চলে স্থিতিশীলতা রক্ষায় বাংলাদেশ গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করছে বলে মনে করে যুক্তরাজ্য। বাংলাদেশের এই ভূমিকা দেশটির ইন্দো-প্যাসিফিক কৌশলের ক্ষেত্রে প্রাসঙ্গিক বলেও বৈঠকে জানান বারটন।

ভ্রমণ নিষেধাজ্ঞা: কোভিডের কারণে বাংলাদেশ, ভারতসহ কয়েকটি দেশে ভ্রমণ নিষেধাজ্ঞা দিয়েছিল যুক্তরাজ্য। এরমধ্যে ভারতের ওপর থেকে নিষেধাজ্ঞা তুলে নিলেও বাংলাদেশ এখনও রেড লিস্টে রয়েছে। বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়, ভ্রমণ নিষেধাজ্ঞার বিষয়টি অগ্রাধিকার ভিত্তিতে পুনর্বিবেচনা করতে যুক্তরাজ্যকে অনুরোধ করেন মাসুদ বিন মোমেন। তিনি তাদের জানান, বর্তমানে বাংলাদেশে কোভিড পরিস্থিতির উন্নতি হচ্ছে। এদিকে, বাংলাদেশে জিনোম সিকুয়েন্স সংক্রান্ত সহযোগিতা বৃদ্ধির বিষয়েও দুইপক্ষ একমত হয়েছে।

অভিবাসন সংলাপ: দুই দেশের মধ্যে মসৃণ অভিবাসনের জন্য অংশীদারিত্ব তৈরির বিষয়ে একটি সংলাপ আয়োজনের বিষয়েও একমত হয়েছে বাংলাদেশ ও যুক্তরাজ্য। এ ছাড়া সন্ত্রাসবাদ দমন, মানবাধিকার রক্ষা, আকাশ ও সমুদ্র যোগাযোগ, সাইবার সিকিউরিটিসহ অন্যান্য বিষয়ে বাংলাদেশ ও যুক্তরাজ্যের দুই প্রতিনিধি একসঙ্গে কাজ করার প্রতিশ্রুতি পুনর্ব্যক্ত করেন।

 

Share.

Leave A Reply