রূপপুর পারমাণবিক বিদ্যুৎ প্রকল্প ঘুরে দেখলেন রুশ ব্লগাররা

0

স্টাফ রিপোর্টার : আট- দিনব্যাপী বাংলাদেশ সফরের এক পর্যায়ে পাবনার ঈশ্বরদীতে নির্মিয়মান রূপপুর পারমাণবিক বিদ্যুৎ প্রকল্প পরিদর্শনে এসেছিলেন বিশিষ্ট চার রুশ ব্লগার। বাংলাদেশের পর্যটন সম্ভাবনাকে রাশিয়ার জনগণের সামনে তুলে ধরা এবং দ্বিপাক্ষিক সম্পর্কে নতুন মাত্র যোগ করার লক্ষ্যে এই সফরের আয়োজন করেছে রাশিয়ার রাষ্ট্রীয় পারমাণবিক শক্তি কর্পোরেশন- রসাটমের প্রকৌশল শাখা এএসই গ্রুপ অব কোম্পানিজ বা এটমস্ত্রয়এক্সপোর্ট যারা রূপপুর পারমাণবিক বিদ্যুৎ প্রকল্প বাস্তবায়নে কাজ করছে।

প্রকল্প এলাকায় ব্লগারদের স্বাগত জানান সেখানে কর্মরত বাংলাদেশী এবং রুশ কর্মকর্তারা। তাদেরকে ইউনিট-১ এবং ইউনিট-২ এর অধিনে নির্মাণাধিন বিভিন্ন স্থাপনা ঘুরে দেখানো হয় এবং প্রকল্পের ভবিষ্যৎ কর্মকান্ড সম্পর্কে অবহিত করা হয়।

এএসই গ্রুপ অব কোম্পানিজের সিনিয়র ভাইস প্রেসিডেন্ট- ইন্টারন্যাশনাল প্রজেক্টস আলেক্সান্দার খাজিন  বলেন, “রুশ ব্লগারদের সফরের আয়োজন বাংলাদেশ ও তার বন্ধুপ্রতীম জনগণের প্রতি আমাদের অঙ্গিকারেরই প্রতিফলন। রূপপুর প্রকল্পের মাধ্যমে  বাংলাদেশের চলমান আর্থ-সামাজিক উন্নয়ন প্রক্রিয়ার সঙ্গে যুক্ত হতে পেরে আমরা আনন্দিত।”

“২০৪১ সালে একটি উন্নত দেশে পরিণত হওয়ার লক্ষ্য অর্জনের পথপরিক্রমায় বাংলাদেশে সবুজ ও নির্মল এনার্জির চাহিদা বহুগুণ বৃদ্ধি পাবে। আমি দৃঢ়ভাবে বিশ্বাস করি যে এই চাহিদা মেটাতে রূপপুর পারমাণবিক বিদ্যুৎ প্রকল্প তাৎপর্যপূর্ণ ভূমিকা রাখবে।”

সফরকালে ব্লগাররা বাংলাদেশের বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ পর্যটন স্থাপনা পরিদর্শন করার পাশাপাশি এদেশের জনগণ, জীবনযাত্রা, সংস্কৃতি ও ঐতিহ্য সম্পর্কে সম্যক জ্ঞান লাভ করবেন। অর্জিত অভিজ্ঞতা তারা তাদের ব্লগের অনুসারীদের সঙ্গে শেয়ার করবেন।

ইতোমধ্যে ব্লগাররা ঢাকা, টাঙ্গাইল, মহাস্থানগড়, পাবনা সফর করেছেন এবং বর্তমানে খুলনায় অবস্থান করছেন। বাগেরহাট, সুন্দরবন, চট্টগ্রাম এবং বান্দরবানসহ অন্যান্য স্থানও ঘুরে দেখার পরিকল্পনাও রয়েছে তাদের।

রুশ ব্লগাররা হলেন আলেগ ক্রিকেট(ওহংঃধমৎধস: @ড়ষবমপৎরপশবঃ), দিমিত্রি লাজিকিন (ওহংঃধমৎধস: @ফরসধষধুুশরহ), ইরিনা গোল্ডম্যান (ওহংঃধমৎধস: @াবৎুরৎব) এবং নিকিতা  তেতেরেভ (ওহংঃধমৎধস: @হরশরঃধথঃবঃবৎবা)। ইনস্টাগ্রামে তাদের মোট অনুসারির সংখ্যা ১৬ লক্ষের অধিক

শুধুমাত্র আলেগ ক্রিকেটের অনুসারির সংখ্যা প্রায় ১০ লক্ষ। কোন কোন সংবাদ মাধ্যমের মতে তিনি বর্তমানে রাশিয়ার সর্বাধিক জনপ্রিয় ব্লগার। আলেগ তার প্রতিক্রিয়ায় বলেন, “রূপপুর সাইটে বিশাল কর্মযজ্ঞ চলছে, কাজের পরিবেশটাও দারুন। আমার কাছে খুবই ভালো লেগেছে এটা দেখে যে কিভাবে রুশ এবং বাংলাদেশীরা কাঁধে কাঁধ মিলেইয়ে বাংলাদেশের প্রথম পারমাণবিক বিদ্যুৎ প্রকল্প নির্মাণে কাজ করে যাচ্ছেন।”

“অন্যান্য প্রকল্পের মতোই পাবনা জেলার অনিন্দ্য সুন্দর প্রকৃতির কোন ক্ষতি না করেই রূপপুর পারমাণবিক বিদ্যুৎ প্রকল্প এতদ্বঞ্চলের আর্থ-সামাজিক উন্নয়নে তাৎপর্যপূর্ণ ভূমিকা রাখবে।” এমনই আশাবাদ ব্যক্ত করেন আলেগ।

জনপ্রিয় ফ্যাশন ম্যাগাজিন কসমোপলিটনের সাবেক সম্পাদক ইরিনা গোল্ডম্যান তার ইনস্টাগ্রাম ব্লগ এবং পোষা কুকুরের (সাইবেরিয়ান হাস্কি জাতের) জন্য সবার কাছে অতি পরিচিত। বাংলাদেশ সফরেও তার সঙ্গী হয়েছে কুকুরটি। বাংলাদেশ সফরে নিজস্ব অভিজ্ঞতা ব্যক্ত করতে গিয়ে ইরিনা বলেন, “আমি সফরটি দারুনভাবেই উপভোগ করছি। রুশ পর্যটকদের জন্য অনেক কিছুই রয়েছে এখানে, বিশেষ করে অপূর্ব প্রাকৃতিক সৌন্দর্য্য, অনন্য সংস্কৃতি ও বর্নিল জীবনযাত্রা।” তিনি রূপপুর পারমাণবিক বিদ্যুৎ প্রকল্পটিকে দ্বিপাক্ষিক সহযোগিতার একটি উজ্জল নিদর্শন হিসেবে আখ্যায়িত করে বলেন “এমন একটি স্থাপনা ভিজিট করার সুযোগ পেয়ে আমি সত্যিই আনন্দিত।

বাংলাদেশের প্রথম রূপপুর পারমাণবিক বিদ্যুৎ প্রকল্পে প্রতিটি ১,২০০ মেগাওয়াট ক্ষমতা সম্পন্ন দুটি বিদ্যুৎ ইউনিট স্থাপন করা হবে। সর্বাধুনিক ৩+ প্রজন্মের রুশ ভিভিইআর রিয়্যাক্টর কাজ করবে প্রতিটি ইউনিটে। এই রিয়্যাক্টরগুলো আন্তর্জাতিক পারমাণবিক শক্তি এজেন্সি (আইএইএ) নির্ধারিত সকল নিরাপত্তা চাহিদা পূরণে সক্ষম। আইএইএ এবং বাংলাদেশ পরমাণু শক্তি নিয়ন্ত্রণ কর্তৃপক্ষ (বায়েরা) এর কঠোর তত্ত্বাবধানে জেনারেল কন্ট্রাক্টর হিসেবে প্রকল্পটি বাস্তবায়ন করছে রুশ প্রতিষ্ঠান এটমস্ত্রয়এক্সপোর্ট (এএসই)। গত বৃহস্পতিবার তারা প্রকল্প এলাকা ঘুরে দেখেন।

Share.

Leave A Reply