মাদক বিক্রিতে বাঁধা দেওয়ায় সুজানগরের উলাটে সাবেক পুলিশ সদস্যসহ তিনজনকে কুপিয়ে হত্যার চেষ্টা

0

স্টাফ রিপোর্টার : মাদক বিক্রিতে বাধা দেওয়ায় অবসরপ্রাপ্ত এক পুলিশ সদস্যসহ তিনজনকে কুপিয়ে আহত করা হয়েছে। এ ঘটনায় মুমূর্ষ অবস্থায় আহত সাবেক পুলিশ সদস্য আমিরুল ইসলাম রেন্টু, তার ভাই রতন মোল্লা এবং ভাতিজা উজ্জ্বলকে পাবনা জেনারেল হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। বুধবার রাত সাড়ে ১০টার দিকে পাবনার সুজানগর উপজেলার উলাট গ্রামে এই ঘটনা ঘটে। আহত পুলিশ সদস্য আমিরুল হক রেন্টু (৬০) রতন মোল্লা (৪০) উলাট দক্ষিণ পাড়ার আব্দুস শুকুরের ছেলে এবং উজ্জ্বল হোসেন (২৫) রতন মোল্লার ছেলে। পুলিশ ও আহত রেন্টু মোল্লার ছেলে সজল মোল্লা এবং স্বজনরা জানান, সুজানগর উপজেলার উলাট মাদরাসার মাঠসহ ওই গ্রামের বিভিন্ন স্থানে দীর্ঘদিন ধরে ইয়াবাসহ বিভিন্ন মাদক দ্রব্য বিক্রি করে আসছে উলাট গ্রামের দক্ষিনপাড়া এলাকার সিদ্দিক আলীর ছেলে মো: কাদের, মৃত কোবাদদ আলী শেখের ছেলেন মন্টু শেখ ওরফে বাউল মন্টু ও মঞ্জু শেখ ছুটুসহ কতিপয় উশৃংখল যুবক। তাদের এই অপকর্মে বাধা দেওয়া এবং এলাকায় ইয়াবা বিক্রি করতে নিষেধ করায় ক্ষুব্ধ হন মাদক বিক্রেতারা। বুধবার রাতে মাদক বিক্রেতারা উলাট মাদরাসা মাঠে ইয়াবা বিক্রির সময় তাদের নিষেধ করলে রেন্টুর উপর তারা চড়াও হন। এ সময় কথাকাটাকাটির এক পর্যায়ে স্কুল ঘরের পাশ থেকে দৌড়ে এসে কাদের, মন্টু ও মঞ্জু মিলে অবসারপ্রাপ্ত পুলিশ সদস্য আমিরুল হক রেন্টু, তার ভাই রতন মোল্লা ও ভাতিজা উজ্জ্বলকে ধারালো অস্ত্র দিয়ে এলোপাথারীভাবে কুপিয়ে মারাত্মক জখম করে। এ সময় রেন্টুর চিৎকারে লোকজন ছুটে এলে মাদক বিক্রেতা ও সন্ত্রাসীরা পালিয়ে যান। পরে স্থানীয়রা উজ্জ্বল, রতন মোল্লা ও রেন্টুকে মুমুর্ষ অবস্থায় উদ্ধার করে পাবনা জেনারেল হাসপাতালে ভর্তি করেন। তাদের তিনজনের অবস্থাই অত্যন্ত আশংকাজনক বলেও জানিয়েছেন চিকিৎসক তার স্বজনরা। সুজানগর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মিজানুর রহমান বলেন, ঘটনাটি জানার পর সেখানে পুলিশ ফোর্স পাঠিয়েছি। হামলাকারীদের গ্রেফতারে অভিযান চলছে। এ ব্যাপারে সুজানগর থানায় মামলা হয়েছে। আসামীরা পলঅতক রয়েছেন। সন্ত্রাসী ও মাদক বিক্রেতাদের বিরুদ্ধে আমাদের অভিযান চলবে। এ ব্যাপারে পুলিশ সুপার মহিবুল ইসলাম খান বলেন, মাদক ব্যবসায়ীদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিতে সুজানগর পুলিশকে নির্দেশ দেওয়া হয়েছে।

Share.

Leave A Reply