বিরাট কোহলির ব্যাঙ্গালোরকে হারিয়ে দিলো চেন্নাই

0

এফএনএস স্পোর্টস: প্লে-অফে যাওয়ার সম্ভাবনা শেষ। হারানোর কিছু বাকি নেই। কিংবা সবকিছুই হারিয়ে গেছে। এমন অবস্থায় চেন্নাই সুপার কিংসের মনে পড়লো তারা আইপিএলের ইতিহাসেই দুই সেরা দলের একটি। সেই উপলব্ধি থেকে জেগে উঠেই রোববার  ৮ উইকেটে হারিয়ে দিলো এবারের আইপিএলের শিরোপার দাবিদার বিরাট কোহলির রয়্যাল চ্যালেঞ্জার্স ব্যাঙ্গালোরকে। দুবাই ক্রিকেট স্টেডিয়াম ব্যাটে-বলে সত্যিকার অর্থেই রাজত্ব করতে দেখলো ধোনির দলকে। প্রথমে বোলিংয়ে যদি নায়ক হন ইংলিশ অলরাউন্ডার স্যাম কারেন, পরে ব্যাটিংয়ে নায়কের আসনে বসেছেন রুতুরাজ গায়কোয়াড়। অপরাজিত ৬৫ রানের  ইনিংস খেলে তরুণ ওপেনারই ম্যান অব দ্য ম্যাচ। টস জিতে ব্যাটিংয়ে যাওয়া ব্যাঙ্গালারকে প্রথম পরীক্ষা দিতে হয়েছে স্যাম কারেনের পেস বোলিংয়ের সামনে। তিন ওভারে ১৯ রান দিয়ে তার শিকার তিন উইকেট- সর্বোচ্চ স্কোরার বিরাট কোহলিসহ (৪৩ বলে ৫০) অ্যারন ফিঞ্চ ও মঈন আলী। নিউজিল্যান্ডের বাঁহাতি স্পিনার মিচেল স্যান্টনারও মৌসুমে প্রথম সুযোগ পেয়ে খারাপ করেননি। চার ওভারে ২৩ রান দিয়ে নিয়েছেন ওপেনার দেবদূত পাড়িক্কালের উইকেট। ১৪৫ রানের বেশি করতে পারেনি ব্যাঙ্গালোর। চেন্নাইয়ের ব্যাটিংটা এবার তুলনামূলকভাবে দুর্বল। তারপরও ১৪৬ রানের লক্ষ্যটা বড় নয়। এবি ডি ভিলিয়ার্স ব্যাটে ঝড় তুলতে না পারাতেই (৩৬ বলে ৩৯) সম্ভবত ব্যাঙ্গালোর বড় স্কোর গড়তে পারেনি। ‘ আমরা যখন ব্যাট করেছি, ড্রাইভ খেলার মতো বল পাইনি। তাদের স্পিনাররা খুবই আঁটোসাঁটো বোলিং করেছে। ১৪০-এর বেশি রান এ উইকেটে প্রতিদ্বন্দ্বিতামূলক, আমাদের লক্ষ্য ছিল ১৫০’-ম্যাচ শেষে বলেছেন ব্যাঙ্গালোর অধিনায়ক কোহলি। চেন্নাইয়ের স্পিনাররা এ ম্যাচে যেন বোলিং করছেন চেন্নাইয়ের চিপকে। ‘এটা একটি নিখুঁত ম্যাচ ছিল। সবকিছু পরিকল্পনামতো হয়েছে। পরিকল্পনার বাস্তবায়ন হয়েছে। বোলাররা নিয়মিত বিরতিতে উইকেট নিয়ে তাদের কম রানে আটকেছে, এই উইকেটে যা কাঙ্খিত লক্ষ্যের চেয়ে কম’-জয়ের পর বলেছেন চেন্নাই অধিনায়ক ধোনি। ব্যাঙ্গালোরের নির্ভরযোগ্য তিন বোলার ওয়াশিংটন সুন্দর, ক্রিস মরিস ও মোহাম্মদ সিরাজ কেউই ভালো বোলিং করেননি। সুন্দর ২৭ রান দিয়ে উইকেটশূন্য। দক্ষিণ আফ্রিকান পেসার মরিস এক উইকেট নিতে রান খরচ করেছেন ৩৬। আগের ম্যাচে দুটি মেডেন ওভার করে রেকর্ড গড়া সিরাজ দুই ওভারেই দিয়েছেন ২৯ রান। হ্যাঁ, উল্টোদিকে একজন ব্যাট হাতে ছিলেন উজ্জ্বল-রুতুরাজ গায়কোয়াড়। ৫১ বলে ৬৫ করে অপরাজিত থেকেছেন তরুণ ওপেনার। ক্রিজের অন্যপ্রান্তে দাঁড়িয়ে সবিস্ময়ে ২৩ বছর বয়সীর ব্যাটিং দেখেছেন ধোনি, যার এতদিনের দুঃখ ছিল কোনও তরুণ সেভাবে এগিয়ে আসেনি! গায়কোয়াড়ের ঝলক তার সঙ্গী ওপেনার ফ্যাপ ডু প্লেসিকে ১৩ বলে ২৫ করতে অনুপ্রাণিত করেছে। স্বভাবসুলভ ব্যাটিং করেছেন অম্বাতি রায়ডু, ২৭ বলে করেছেন ৩৯। অসাধারণ এই জয়েও চেন্নাইয়ের ভাগ্য বদলায়নি, তারা সবার নিচেই। শুধু হাতে দুই পয়েন্ট যোগ হওয়ায় মোট পয়েন্ট ৮। আর হেরেও ১১ ম্যাচে ১৪ পয়েন্ট পাওয়া ব্যাঙ্গালোর তৃতীয় স্থানে। দিনের দ্বিতীয় ম্যাচে মুম্বাইকে হারিয়ে রাজস্থান টুর্নামেন্ট থেকে চেন্নাইয়ের বিদায় নিশ্চিত করেছে আনুষ্ঠানিকভাবে।

সংক্ষিপ্ত স্কোর:

ব্যাঙ্গালোর: ২০ ওভারে ১৪৫/৬ (কোহলি ৫০,ডি ভিলিয়ার্স ৩৯, পাড়িক্কাল ২২, কারেন ৩/১৯, চাহার ২/৩১) ও চেন্নাই: ১৮.৫ ওভারে ১৪৬/২(গায়কোয়ারড় ৬৫*, রায়ডু ৩৯, ডু প্লেসি ২৫, চাহাল ১/২১, মরিস ১/৩৬)।

 

Share.

Leave A Reply