চাটমোহর উপজেলা পূজা উদযাপন পরিষদের বিরুদ্ধে অপপ্রচারের প্রতিবাদে সংবাদ সম্মেলন

0

শামীম হাসান মিলন : চাটমোহর উপজেলা পূজা উদযাপন পরিষদের বিরুদ্ধে অপপ্রচারের প্রতিবাদে সংবাদ সম্মেলন করেছে উপজেলা পূজা উদযাপন পরিষদ নেতৃবৃন্দ। গতকাল শুক্রবার স্থানীয় রাধাবল্লভ মন্দির সংলগ্ন পরিষদের অফিস কক্ষে উপজেলা পূজা উদযাপন পরিষদের সভাপতি সহকারী অধ্যাপক অশোক চক্রবর্তীর সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত হয়। সংবাদ সম্মেলনে লিখিত বক্তব্য পাঠ করেন পূজা উদযাপন পরিষদের সাধারণ সম্পাদক প্রবীর দত্ত চৈতন্য। সংবাদ সম্মেলনে বলা হয়, চলতি দূর্গাপূজা উপলক্ষে সরকার উপজেলার ৪৭টি পূজা মন্ডপে ৫০০ কেজি করে চাল বরাদ্দ দেয়। সম্মিলিতভাবে এই চাল বিক্রি করে প্রতেক পূজামন্ডপে ১৯ হাজার টাকা করে প্রদান করা হয়। এরমধ্যে প্রত্যেক মন্ডপের সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক উপজেলা পূজা উদযাপন পরিষদের কার্যক্রম পরিচালনাসহ ধর্মীয় নানা অনুষ্ঠান ও জাতীয় দিবস উদযাপনের জন্য ১৩ শত টাকা করে উপজেলা পূজা উদযাপন পরিষদের ফান্ডে অনুদান হিসেবে প্রদান করেন। কিন্তু হিন্দু সম্প্রদায়ের কিছু জনবিচ্ছিন্ন ব্যক্তি বা মহল অপপ্রচার চালায় যে, চাল বিক্রির ১৩ শত টাকা কেটে নেওয়া হয়েছে।

পাবনা জেলা পূজা উদযাপন পরিষদের নেতৃবৃন্দকেও তারা এই অভিযোগ দেয়। যা নিয়ে বিভ্রান্তির সৃষ্টি হয়েছে। এনিয়ে পত্রিকাতেও সংবাদ প্রকাশ করা হয়েছে। যা অত্যন্ত দুঃখজনক। সংবাদ সম্মেলনে দাবি করা হয়, কোন মন্ডপের টাকা উপজেলা পূজা উদযাপন পরিষদ কেটে রাখেনি। অভিযোগ সম্পূর্ণ মিথ্যে। মন্ডপের সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক স্বইচ্ছায় অনুদান হিসেবে এই টাকা প্রদান করেছেন। এরপর যখন এনিয়ে অভিযোগ বা কথা উঠেছে, তখন সকল মন্ডপের সভাপতি সম্পাদককে টাকা ফেরত নেওয়ার জন্য বলা হয়েছে। ইতোমধ্যে ৯টি মন্ডপ টাকা ফেরত নিয়েছে। সংবাদ সম্মেলনে আরো বলা হয়েছে, উপজেলা পূজা উদযাপন পরিষদের নেতৃবৃন্দকে হেয়প্রতিপন্ন করতেই এ ধরণের অপপ্রচার ও অপকৌশলের আশ্রয় নেওয়া হয়েছে। আমরা এর জন্য ক্ষোভ প্রকাশ ও নিন্দা জ্ঞাপন করছি। সংবাদ সম্মেলনে উপজেলা পূজা উদযাপন পরিষদের সাংগঠনিক সম্পাদক কিংকর সাহা, পৌরসভা সভাপতি শম্ভুনাথ কুন্ডু, সাধারণ সম্পাদক তরুন পাল, চাটমোহর নতুন বাজার পূজা মন্ডপের সভাপতি সহকারী অধ্যাপক অনুপ কুন্ডু, হান্ডিয়াল ইউনিয়ন সভাপতি দীলিপ ব্রম্মচারী, উপজেলা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক রাজিব বিশ^াস, জয়দেব কুন্ডু গণো, সুদাম দত্তসহ উপজেলা ও ইউনিয়ন কমিটির নেতৃবৃন্দ ও বিভিন্ন পূজামন্ডপের সভাপতি ও সম্পাদক উপস্থিত ছিলেন। প্রসঙ্গতঃ চাটমোহরে শারদীয় দুর্গাপুজা উপলক্ষে প্রতিটি পূজা মন্ডপে সরকারের দেওয়া ৫০০ কেজি চালের মধ্যে ৩৪ কেজি চালের দাম ১৩শত টাকা সংগঠন চালানোর খরচের নামে কেটে রাখেন উপজেলা পুজা উদযাপন পরিষদের নেতারা। এতে প্রতিটি মন্দির ভাগে পায় ১৯ হাজার টাকা। কিন্তু প্রতিটি মন্দির কমিটির মাঝে বিতরণ করা হয় ১৭ হাজার ৭০০ টাকা। এ নিয়ে বঞ্চিত মন্দির কমিটির নেতাদের মধ্যে দেখা দেয় ক্ষোভ। চাল বিক্রির ১৩শ’ টাকা কম দেওয়া হয় প্রতিটি মন্দির কমিটিকে। ঘটনাটি জানাজানি হলে সেই টাকা ফেরত দেওয়ার চেষ্টা করেন নেতৃবৃন্দ। এনিয়ে পত্র-পত্রিকায় সংবাদও প্রকাশিত হয়। এ ঘটনার পর উপজেলা পূজা উদযাপন পরিষদের নেতৃবৃন্দ নিজেদের নির্দোষ দাবি করে ঘটনার সঠিক ব্যাখ্যা প্রদানের জন্যই শুক্রবার সংবাদ সম্মেলনের আয়োজন করেন। এ নিয়ে ২২ অক্টোবর দৈনিক ইছামতিতে একটি সংবাদ প্রকাশ হয়েছে।

Share.

Leave A Reply