আওয়ামীলীগের ওয়ার্ডের সম্মেলনে জাসদ নেতা কর্মীদের সম্পৃক্ততায় মিশ্র প্রতিক্রিয়া ভাড়ারা ইউনিয়নে

0

নিজস্ব প্রতিনিধি : দলকে অধিকতর সুসংগঠিত করার লক্ষ্যে বিভিন্ন ইউনিয়নের তৃণমূল পর্যায়ে চলছে আওয়ামীলীগের বর্ধিত সভা ও সম্মেলন। সদরের ভাড়ারা ইউনিয়নের প্রায় প্রতিটি ওয়ার্ডে জাসদ নেতাকর্মীদের সম্পৃক্ততা ও কোন কোন জায়গায় গুরুত্বপূর্ণ পদে প্রার্থীতা ঘোষনা করায় মিশ্র প্রতিক্রিয়া সৃষ্টি হয়েছে আওয়ামীলীগের তৃণমুলের নেতাকর্মীদের মাঝে। যারা সারাজীবন আওয়ামীলীগের বিরোধী শিবিরে কাজ করেছেন, তাদের অনেকেই এখন ভোল পাল্টিয়ে স্থানীয় আওয়ামীলীগের কয়েকজন নেতাকর্মীদের সাথে মিশে হঠাৎ করে ওয়ার্ডের সম্মেলনে প্রার্থী হয়ে দাড়িয়েছেন। সম্প্রতি ভাড়ারার ৬ নম্বর ওয়ার্ডের সম্মেলন অনুষ্ঠিত হয়। উক্ত সম্মেলনে কমিটিও ঘোষনা করা হয়। পরবর্তিতে সে কমিটি আবার স্থগিতও ঘোষনা করা হয় তৃণমূলের নেতাকর্মীদের দাবির প্রেক্ষিতে বলে জানান কয়েকজন নেতাকর্মী। জাসদের একজস সক্রিয় সদস্য হিসেবে জেলা জাসদের সাধারন সম্পাদক হাবিবুল হক মিন্টু গত ২০১৬ সালের ৪ এপ্রিল প্রত্যয়নপত্র দেন ভাড়ারার পশ্চিম দিয়ারপাড়া গ্রামের চাঁদু প্রামানিকের ছেলে আলম প্রামানিককে। সেই আলম প্রামানিককে করা হচ্ছে ওয়ার্ড আওয়ামীলীগের সাধারন সম্পাদক বলে অভিযোগ নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক আওয়ামীলীগের বেশ কয়েকজন নেতাকর্মীর। স্থানীয়ভাবে আওয়ামীলীগের সংগঠক বলে পরিচিতি আলিম উদ্দিন কর্মকারের ছেলে আতাউরও প্রার্থী হয়েছেন। কিন্তু স্থানীয়ভাবে নেতাকর্মীরা তাকে প্রত্যাশা করলেও তিনি পেরে উঠতে পারছেন না দলে নব্য আসা কয়েকজনের কারনে বলে অভিযোগ তার নিজেরও। কয়েকদিন আগে হওয়া সম্মেলনে আব্দুল ওহাবকে সভাপতি,আলম প্রামানিক (জাসদ থেকে কিছুদিন আগে দলে আসা) সাধারন সম্পাদক ও বাবুকে সাংগঠনিক সম্পাদক করে ঘোষনা করা কমিটি ফের স্থগিত করা হয় বলে দলের কয়েকজন নেতাকমৃী জানান। কাথুলিয়া-ভাইডাঙ্গা-আতাইকান্দা-নতুনপাড়া-দিয়ারপাড়া ও কালুরপাড়া নিয়ে গঠিত ৬ নম্বর ওয়ার্ডের দলীয় নেতাকর্মীরা চান গ্রামে দলের ত্যাগী ও দীর্ঘদিনের পরীক্ষিত নেতাকর্মীদের নিয়ে নতুন কমিটি ঘোষনা করা হোক। এমন প্রত্যাশা তাদের সদর উপজেলা আওয়ামীলীগের নেতৃবৃন্দের কাছে।

Share.

Leave A Reply