লিপজিগকে ২-০ গোলে হারাল লিভারপুল

0

এফএনএস স্পোর্টস: পরাজয়ের ধারা থেকে ঘুরে দাঁড়িয়ে চ্যাম্পিয়ন্স লিগে দারুন সফলতা অর্জন করেছে প্রিমিয়ার লিগ চ্যাম্পিয়ন লিভারপুল। মঙ্গলবার বুদাপেস্টে অনুষ্ঠিত চ্যাম্পিয়ন্স লিগের শেষ ষোলর প্রথম লেগে তারা ২-০ গোলে হারিয়েছে আরবি লিপজিগকে। দ্বিতীয়ার্ধের শুরুতে মোহাম্মদ সালাহ ও সাদিও মানের গোল কোন রকম বিপাকেই পড়তে দেয়নি লিভারপুলকে। জার্মান ক্লাবের রক্ষনাত্মক কৌশল ভেদ করেই লক্ষ্যভেদ করেছে ইংলিশ জায়ান্টরা। এখন ১০ মার্চের ফিরতি লেগে এই পরাজয়কে টপকে পরের রাউন্ডে এগিয়ে যাবার সম্ভাবনা অনেকটাই মিইয়ে গেছে জার্মান ক্লাবটির। এই জয় জার্গেন ক্লপের শিষ্যদের পৌঁছে দিয়েছে চ্যাম্পিয়ন্স লিগের কোয়ার্টার ফাইনালের দ্বারপ্রান্তে। একই ভাবে প্রিমিয়ার লিগে টানা পরাজয়ের বৃত্ত থেকেও বেরিয়ে এসেছে লিভারপুল। যে পরাজয়ের কারণে প্রিমিয়ার লিগের শীর্ষ পয়েন্টধারী ম্যানচেস্টার সিটির চেয়ে ১৩ পয়েন্টে পিছিয়ে পড়েছে বর্তমান চ্যাম্পিয়নরা। ম্যাচ শেষে ক্লপ বিটি স্পোর্টসকে বলেন,‘ আমরা এমন খেলাই চেয়েছি। এমন ম্যাচই আমাদের দরকার ছিল। লিপজিগ দানবীয় রূপ লাভ করতে পারতো। তাদের সেই রকম শারিরিক দক্ষতা রয়েছে। বুন্দেস লিগায়ও দুর্দান্ত ওই ক্লাব। আমরা বিশেষ কৌশলে তাদের নিয়ন্ত্রন করেছি।’ কোভিড -১৯ এর সংক্রম রোধে জার্মানিতে ভ্রমন নিষেধাজ্ঞা জারি হওয়ায় প্রথম লেগের এই ম্যাচটি লিপজিগে আয়োজন করতে ব্যর্থ হয় জার্মান জায়ান্টরা। ফলে সেটি হাঙ্গেরিয়ার রাজধানী বুদাপেস্টে সরিয়ে নেয় উয়েফা। স্থান চ্যুত হবার পরও নিজেদের মাঠে টানা চার ম্যাচে জয় লাভ করা এবং বুন্দেসলিগায় বায়ার্ন মিউনিখের চেয়ে পিছিয়ে দ্বিতীয় অবস্থানে থাকা জুলিয়ান নাগেলসম্যানের দলটি বেশ ভাল সুচনাই করেছিল। চতুর্থ মিনিটে একটি গোলের বেশ কাছেই চলে গিয়েছিল। লেফট ব্যাক এ্যাঞ্জেলিনোর পাসের বল দারুন হেডে জালে জড়িয়ে দেয়ার চেস্টা করেছিলেন সতীর্থ স্প্যানিশ দানি ওলমো। কিন্তু বারে লেগে ফিরে আসে বলটি। পরমুহুর্তে ফের গোলের সুযোগ সৃস্টি করেন এ্যাঞ্জেলিনো। তিনি বাঁ প্রান্ত দিয়ে বাঁ পায়ে ভলি করলে সেটি গোলমুখ থেকে প্রতিহত হয়। এদিকে ঘরোয়া লিগে বার বার ব্যর্থ হয়ে চ্যাম্পিয়ন্স লিগকে অনুপ্রেরনার জায়গা হিসেবে বেঁছে নেয়া লিভারপুলের হয়ে মোহাম্মদ সালাহ একের পর এক সুযোগ সৃস্টি করেও তা কাজে লাগাতে ব্যর্থ হচ্ছিলেন। অধিকাংশ সময় লিপজিগের জমাট রক্ষনে গিয়ে হার মানতে হয়েছে তাকে। বল দখলে এগিয়ে থেকেও প্রথমার্ধে কোনো গোলের দেখা পায়নি লিভারপুল। গোল এসেছে বিরতির পর। ৫৩তম মিনিটে লিপজিগের মিডফিল্ডার মার্সেল সাবিতজারের ব্যাক পাসে বল পেয়ে ডি-বক্সে ঢুকে প্রথম গোলটি করেন সালাহ। এরপর ৫৮ মিনিটে আরেকটি সুযোগ পেয়ে যায় লিভারপুল। কার্টিস জোন্সের ক্রস ক্লিয়ার করার চেষ্টা করে ব্যর্থ হন নর্ডি মুকিয়েল। বলর নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে পড়ে যান তিনি। ওই সুযোগে বল নিয়ে ডি-বক্সে ঢুকে লক্ষ্য ভেদ করেন সাদিও মানে। ফলে স্বস্তির জয় নিয়ে মাঠ ছাড়ে লিভারপুল। খেলা শেষে নাগেলসম্যান বলেন,‘ আমরা দুটি বড় ভুল করেছি। যে কোন পর্যায়ে এর সাজা পেতে হয়। একদিকে ভুল, ভালভাবে খেলতে না পারা-সবকিছু মিলিয়ে এই ফল নিয়ে মাঠ ছাড়তে হয়েছে। ফিরতি লেগেও আমাদেরকে অন্তত দুই গোল করতে হবে। তাহলেই কেবল অতিরিক্ত সময়ে ম্যাচটিকে নেয়া যাবে। তবে আমরা নিজেদের সেরাটা দিয়ে খেলার চেস্টা করব।’

Share.

Leave A Reply