ভারতে নাগরিকত্ব আইন: সংঘাতে নিহতের সংখ্যা বেড়ে ১৪

0

এফএনএস বিদেশ : সংশোধিত নাগরিকত্ব আইনের (সিএএ) বিরুদ্ধে গতকাল শনিবারও প্রতিবাদ-বিক্ষোভে অশান্ত হয়ে পড়েছে ভারতের উত্তরপ্রদেশ ও রাজধানী নয়াদিল্লি। গত তিন দিনে প্রতিবাদ, বিক্ষোভ ও সংঘর্ষে ১৪ জন নিহত হয়েছে বলে ইন্ডিয়ান এক্সপ্রেস জানিয়েছে। গত শুক্রবার জুমার নামাজের পর উত্তরপ্রদেশের ১৩টি জেলায় সংশোধিত নাগরিকত্ব আইনবিরোধী তুমুল বিক্ষোভ শুরু হয়। একপর্যায়ে বিক্ষোভকারীদের সঙ্গে পুলিশের সংঘর্ষ বেধে যায়। সংঘর্ষে ৯ জন নিহত হয়েছে বলে স্থানীয় সংবাদমাধ্যমগুলোতে জানানো হয়। সংঘর্ষ চলাকালে বিক্ষোভকারীদের লক্ষ্য করে কোনো গুলি ছোঁড়া হয় নি বলে দাবি করেছে উত্তর প্রদেশের পুলিশ। তাদের দাবি, বিক্ষোভকারীরাই গুলি ছুড়েছে এবং তাদের গুলিতেই এই হতাহতের ঘটনা ঘটেছে। তবে সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে ছড়িয়ে পড়া  কয়েকটি ভিডিওতে দেখা গেছে, জনতা-পুলিশ খ-যুদ্ধের সময় গুলি চালাচ্ছে পুলিশ। উত্তর প্রদেশ পুলিশের মহাপরিচালক ওপি সিং বলেন, ‘আমরা একটি গুলিও ছুড়িনি’। শনিবার রাজ্য পুলিশ জানিয়েছে, প্রতিরোধমূলক ব্যবস্থা হিসেবে পুলিশ উত্তর প্রদেশ থেকে ছয় শতাধিক লোককে আটক করা হয়েছে।  এনডিটিভি অনলাইন জানিয়েছে, উত্তরপ্রদেশের রামপুরে শনিবার পুলিশের সঙ্গে বিক্ষোভকারীদের সংঘর্ষ হয়েছে। বিক্ষোভকারীরা পুলিশের ব্যারিকেড ভেঙ্গে ফেলে এবং তাদের লক্ষ্য করে ইট-পাটকেল ছোড়ে। জবাবে পুলিশ বিক্ষোভকারীদের লক্ষ্য করে টিয়ার গ্যাসে নিক্ষেপ করে ও তাদের লাঠিচার্জ করে। সংঘর্ষের পর রামপুর এলাকার ইন্টারনেট পরিষবা বন্ধ করে দেওয়া হয়েছে। চেন্নাইতে পুলিশ প্রায় ২০০ শিক্ষার্থীকে আটক করেছে। তারা সংশোধিত নাগরিকত্ব আইনের প্রতিবাদে ট্রেন চলাচল বন্ধ করে দেওয়ার চেষ্টা করছিল। এদিকে শনিবারও দিল্লির জামিয়া মিল্লিয়ার সামনে অবস্থান নিয়েছে বিক্ষোভকারীরা। তবে এখনো পর্যন্ত সেখান থেকে কোনো সহিংসতার খবর আসে নি। বাংলাদেশ, আফগানিস্তান ও পাকিস্তান থেকে যাওয়া অমুসলিমদের নাগরিকত্ব দিতে গত সপ্তাহে সংশোদিত নাগরিকত্ব আইনটি পাশ হয়। সমালোচকদের দাবি, এ আইন ভারতের ধর্মনিরপেক্ষ সংবিধানের বুকে আঘাত। ‘হিন্দুত্ববাদী এজেন্ডা’ বাস্তবায়নের জন্যই ক্ষমতাসীন বিজেপি এই সংশোধন করেছে।01-

Share.

Leave A Reply