কানাডা প্রবাসী হেলালের তত্বাবধায়নে কয়েকজন যুবকের এই দেশ একটি ইচ্ছাই দেবে শান্তি কল্যাণমূলক কার্যক্রম

0

স্টাফ রিপোর্টার : শহরে প্রচার বিমূখভাবে কাজ করে যাচ্ছেন কয়েকজন স্বেচ্ছাসেবী যুবক। তাদের সকলের গায়ে ‘ এই দেশ একটি ইচ্ছাই দেবে শান্তি’ লেখা সম্বলিত টি-শার্ট। একদিকে ভয়াল করোনার থাবা অন্যদিকে পবিত্র ঈদ উল ফেতর। সব মিলিয়ে মানুষের মনের ভেতরে অজানা আতংকঘেরা এক বোবা কষ্ট। আর তাদের সেই কষ্টের সাথে যেন নিজেদের শামিল করেছে এসব যুবক। জানা গেলো কানাডা প্রবাসী পাবনার সদর উপজেলার ভাড়ারা ইউনিয়নের কোলাদি গ্রামের ছেলে শমসের আলী হেলালের তত্বাবধায়নে চলছে তাদের ব্যাতিক্রমী মানবকল্যাণমূলক কাজ। এসব যুবকেরা পাবনা পৌর এলাকার ২৫ জন রিকশাচালককে ৫শ টাকা করে, ২৫ জন নৈশ প্রহরীকে ৫ শ করে টাকা ঈদের খরচ করে হিসেবে দিয়েছে। স্থানীয় দক্ষিন রামচন্দ্রপুরের হরিজন কলোনীর ৩৬ টি পরিবারের মাঝে ৫শ করে এবং দুবলিয়া ও কোলাদি গ্রামের হতদরিদ্র অসহায় ১৩৫ টি পরিবারে ৫ শ করে শমসের আলী হেলালের প্রেরিত টাকা প্রদান করেছে তারই গঠন করা এই টিম। ১ শ জন শারিরিক প্রতিবন্ধী ও ভিক্ষুক পরিবারে কাঁচা তরিতরকারিসহ খাদ্য সামগ্রী এবং ঈদের সামগ্রী বিতরণ করেছে এই টিম। সাদা মনের মানুষ হিসেবে পাবনার স্থানীয় মানুষদের কাছে সুপরিচিত শমসের আলী হেলাল কানাডাতে ট্যাক্সি চালান। কেউ মারা গেলে লাশ ধোঁয়ানো ও দাফনের কাজে শরিক থাকা হলো তার কাজ। এটাকে তিনি কোন অনুদান মনে করেন না, মনে করেন মানুষের প্রতি মানুষের এক টুকরো ভালোবাসা হিসেবে। এমন কার্যক্রমে সাধারন অসহায় মানুষ যেমন উপকৃত হচ্ছে ঠিক তেমনি এ নিয়ে কাজ করা যুবকেরাও সামাজিক অবক্ষয় থেকে দুরে থেকে নিজেদেরকে ভালোকাজে সম্পৃক্ত করে রাখতে পারছে, এটাই তার আত্মিক প্রশান্তি। তার আহবানে সাড়া দিয়ে এমনতরো মহতী কাজের সাথে বেশ কয়েকবছর থেকেই সম্পৃক্ত হওয়া যুবকেরা হলেন আব্দুল মোমিন বিপ্লব, এস পারভেজ, সোহাগ হোসেন, জাহিদ হাসান,রতনসহ কয়েকজন। উল্লেখ্য, শমসের আলী হেলাল মনে করেন এই দেশটা আমাদের, আমাদের একটি ইচ্ছে ভালো কাজের মাধ্যমে আমাদেরই মানসিক ও আত্মিক প্রশান্তির সৃষ্টি করে। ফলে সকলকে দেশ ও দেশের মানুষের জন্য কাজ করে যেতে হবে। কারন এই প্রকৃতি আমাকে বেড়ে তুলেছে, ফলে প্রকৃতিকেও আমাকে কিছুটা দেবার চেষ্টা থাকতে হবে। ইমান আকিদা সহি শুদ্ধ থাকলে সবকিছু মোকাবেলা করা সম্ভব বলে মনে করেন তিনি। নিজের আচার আচরণ উচ্চারন দিয়ে মানুষের মাঝে নিজের অবস্থানকে শক্ত করতে হবে। বলেন কেউ থাকবো না আমরা। আসুন না সকলে মিলে চেষ্টা করি, যাতে চলে গেলেও থেকে যায় রয়ে যাওয়া মানুষদের অন্তর আত্মার বাতায়নে।

Share.

Leave A Reply