করোনাভাইরাস মোকাবিলায় ৪ মার্কিন সামরিক ঘাঁটি প্রস্তুত

0

এফএনএস বিদেশ : চীন থেকে বিশ্বজুড়ে ছড়িয়ে পড়া মরণঘাতী করোনাভাইরাস মোকাবিলায় যুক্তরাষ্ট্রের স্বাস্থ্য ও মানব পরিষেবা বিভাগকে (এইচএইচএস) সহায়তা করার জন্য দেশটির চারটি সামরিক ঘাঁটি প্রস্তুত রয়েছে। মার্কিন নাগরিকদের, যারা চীনের উহান থেকে করোনাভাইরাস নিয়ে দেশে প্রবেশ করেছে, তাদের থেকে যেনো ভাইরাসটি ছড়িয়ে না পড়ে, সেজন্য চিকিৎসাসহ তৎপরতা চালাচ্ছে এইচএইচএস। একইসঙ্গে অন্যান্য কারণেও যাতে দেশে এর প্রভাব না বাড়ে, সেজন্য কাজ করছে সংস্থাটি। মার্কিন প্রতিরক্ষা দপ্তর পেন্টাগনের ওয়েবসাইটে কর্মকর্তারা জানিয়েছেন, চীন বা অন্যান্য দেশে ভ্রমণকালে মারাত্মক এই ভাইরাসে আক্রান্ত হতে পারে এমন প্রায় এক হাজার লোককে দেশে স্বতন্ত্রভাবে বাস করার সহায়তায় এইচএইচএসের অনুরোধ অনুমোদন করেছেন মার্কিন প্রতিরক্ষা সচিব মার্ক এস্পার। এর আগে ২৯ ফেব্রুয়ারি পর্যন্ত স্বতন্ত্রভাবে কক্ষে রেখে কমপক্ষে ২৫০ জন বিদেশফেরত লোককে বাসস্থানের সুযোগ করে দেওয়ার জন্য নিজেদের প্রতিরক্ষা বিভাগকে অনুরোধ করেছিলেন এইচএইচএস কর্মকর্তারা। করোনাভাইরাস মোকাবিলায় যে চারটি মার্কিন সামরিক ঘাঁটি প্রস্তুত রয়েছে, সেগুলো হলো- কলোরাডোর ফোর্ট কারসনের ১৬৮তম রেজিমেন্ট আঞ্চলিক প্রশিক্ষণ ইনস্টিটিউট, ক্যালিফোর্নিয়ার ট্র্যাভিস বিমানঘাঁটি, টেক্সাসের ল্যাকল্যান্ড বিমানঘাঁটি এবং ক্যালিফোর্নিয়ার মেরিন কর্পস এয়ার স্টেশন মিরামার। ঘাঁটিগুলোতে থাকা নাগরিকদের জন্য চিকিৎসা, যতœ, পরিবহন এবং সুরক্ষা ব্যবস্থাও সরবরাহ করবে মার্কিন প্রতিরক্ষা বিভাগ। করোনাভাইরাস ঠেকাতে যুক্তরাষ্ট্র জনস্বাস্থ্যে জরুরি অবস্থা ঘোষণা করে। একইসঙ্গে দেশটি চীন ভ্রমণ করে আসা বিদেশিদের ঢুকতে না দেওয়ার সিদ্ধান্ত নেয়। যুক্তরাষ্ট্রের মতো বিশ্বের আরও অনেক দেশ চীনের সঙ্গে যাতায়াত বন্ধ করে দিয়েছে। গোটা বিশ্বে আতঙ্ক ছড়াচ্ছে নতুন করোনাভাইরাস। এই রোগের শুরু চীনে। দেশটির মধ্যাঞ্চলের প্রাদেশিক রাজধানী শহর উহানে এর আবিষ্কার। এখন ছড়িয়ে গেছে বিশ্বের ২৪ টিরও বেশি দেশে। এর মধ্যে যুক্তরাষ্ট্রে এ পর্যন্ত ১০ জনের বেশি করোনাভাইরাস আক্রান্ত হয়েছেন বলে শনাক্ত করা হয়েছে। এদিকে, মহামারি আকার ধারণ করেছে চীনে। মৃত্যুর সঙ্গে লাফিয়ে বাড়ছে করোনাভাইরাসে আক্রান্ত মানুষের সংখ্যাও। দেশটিতে এ পর্যন্ত ৪২৫ জনের মৃত্যু হয়েছে। আক্রান্ত হয়েছেন ২০ হাজারেরও বেশি।

Share.

Leave A Reply