কক্সবাজার সৈকতে ভেসে আসা বর্জ্য অপসারণ শুরু

0

এফএনএস: কক্সবাজার সমুদ্র সৈকতে ভেসে আসা বিপুল পরিমাণ বর্জ্য অপসারণে আনুষ্ঠানিকভাবে কাজ শুরু করেছে জেলা প্রশাসন। গতকাল বুধবার সামাজিক ও পরিবেশবাদী সংগঠনের শতাধিক কর্মী নিয়ে সৈকত পরিষ্কার অভিযান শুরু করেন জেলা প্রশাসক ও বিচ ম্যানেজমেন্ট কমিটির সভাপতি মো. কামাল হোসেন। সৈকতের দরিয়ানগর এলাকা থেকে এ অভিযান শুরু করা হয়। এ সময় জেলা প্রশাসক বলেন, ভেসে আসা নানা ধরণের বর্জ্য সৈকতকে দুষিত করেছে। কারণ এসব বর্জ্যরে বেশিরভাগই বোতলজাত ও প্লাস্টিক দ্রব্য। যা আমাদের দেশে ব্যবহার হয় না। এ বিষয়টি তদন্তের জন্য অতিরিক্ত জেলা প্রশাসককে (রাজস্ব) প্রধান করে একটি কমিটি গঠন করা হয়েছে। যে কমিটি ইতোমধ্যে কাজ শুরু করে দিয়েছে। তারা বিশেষজ্ঞদের সঙ্গে কথা বলে এর কারণ বের করতে পারবে বলে আমার বিশ্বাস। তিনি আরও বলেন, পরিবেশ অধিদফতরসহ প্রায় ১১টি সামাজিক ও পরিবেশবাদী সংগঠনের কর্মী নিয়ে সৈকতের নাজিরারটেক পয়েন্ট থেকে হিমছড়ি পয়েন্ট পর্যন্ত প্রায় ১২ কিলোমিটার এলাকাজুড়ে পড়ে থাকা বর্জ্য অপসারণ করার কাজ শুরু করেছি। কামাল হোসেন বলেন, বিশ্বের দীর্ঘতম সমুদ্র সৈকত শুধু কক্সবাজারবাসীর সম্পদ নয়, বাংলাদেশেরই সম্পদ। তাই সৈকত পরিষ্কার রাখার দায়িত্ব সবার। সৈকতের সৌন্দর্য ফিরিয়ে আনার কাজে যারা এগিয়ে এসেছেন সকলকে আন্তরিক ধন্যবাদ ও কৃতজ্ঞতা। আমরা বিচ ক্লিনিং কার্যক্রম অব্যাহত রাখবো। দরিয়ানগর এলাকায় বিচ পরিষ্কারে নেতৃত্ব দেয়া আনছার হোসেন বলেন, বর্ষা মৌসুমে বিভিন্ন বর্জ্য সৈকতে ভেসে আসে। কিন্তু এবারে অতিমাত্রায় মদের বোতল, প্লাস্টিকসহ অপচনশীল পদার্থ এসেছে। যা কখনও দেখেনি স্থানীয়রা। সঙ্গে ভেসে আসছে মৃত সামুদ্রিক কাছিমসহ নানা উভচর প্রাণীও। বিভিন্ন সংগঠনের মতো আমরা স্থানীয় প্রায় শতাধিক যুবক জেলা প্রশাসনের সঙ্গে সৈকত পরিষ্কারে নেমেছি। টিম কক্সবাজারের সমন্বয়ক নাজমুল হক বলেন, গত কয়েকদিনে নাজিরারটেক থেকে হিমছড়ি পয়েন্ট পর্যন্ত এলাকার বর্জ্য অপসারণের পাশাপাশি মৃত কাছিম ও বন্যপ্রাণী মাটিতে পুঁতে ফেলা হয়েছে। অবমুক্ত করা হয়েছে প্রায় দুই ডজন জীবিত কাছিম। আমরা আমাদের কক্সবাজারকে পরিষ্কার রাখতেই কাজ করছি এবং করে যাব। এ সময় অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (রাজস্ব) মো. আশরাফুল আফসার, কক্সবাজার পরিবেশ অধিদফতরের উপ-পরিচালক নাজমুল হুদা, জেলা প্রশাসনের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট (পর্যটন সেল) ইমরান জাহিদসহ বিভিন্ন সংগঠনের প্রধানরা উপস্থিত ছিলেন।

Share.

Leave A Reply