এশিয়া কাপে দ্বিতীয় সারির দল পাঠাবে ভারত

0

এফএনএস স্পোর্টস: এ বছরও এশিয়া কাপে মাঠে গড়াবে কি না তা নিয়ে সংশয় তৈরি হয়েছে। মূলত ভারত টেস্ট চ্যাম্পিয়নশিপের ফাইনালে কোয়ালিফাই করায় এশিয়া কাপ আয়োজনে বিপত্তি বেঁধেছে। তবে এশিয়া কাপে দল পাঠাতে প্রস্তুত বিসিসিআই। সর্বশেষ এশিয়া কাপ মাঠে গড়িয়েছিল ২০১৮ সালে সংযুক্ত আরব আমিরাতে। এরপর এশিয়া কাপ ২০২০ সালে আয়োজনের কথা থাকলেও করোনাভাইরাসের কারণে সেটি পিছিয়ে আনা হয় ২০২১ সালে। এ বছর শ্রীলঙ্কায় এশিয়া কাপ আয়োজনের কথা থাকলেও শেষ পর্যন্ত টুর্নামেন্টটি মাঠে গড়াবে কি না তা নিয়ে বেঁধেছে বিপত্তি। মূলত এশিয়া কাপ জুনে আয়োজন করার থাকলেও একই মাসে ইংল্যান্ডে টেস্ট চ্যাম্পিয়নশিপের ফাইনাল খেলবে ভারত। তার পরেই ইংল্যান্ডের বিপক্ষে টেস্ট সিরিজ খেলবে ভারত। যে কারণে শেষ পর্যন্ত মাঠে গড়ালে গত আসরের মতো এই আসরেও দ্বিতীয় সারির দল পাঠাতে হতে পারে বিসিসিআইকে। তবে দ্বিতীয় সারির দল পাঠাতে আপত্তি নেই বিসিসিআইয়ের। ভারতের জনপ্রিয় সংবাদমাধ্যম ‘টাইমস অব ইন্ডিয়া’ এমনই প্রতিবেদন প্রকাশ করেছে। বিসিসিআইয়ের এক সূত্র অনুযায়ী এশিয়া কাপে দ্বিতীয় সারির দল পাঠালে ওই টুর্নামেন্টে অংশগ্রহণ করতে পারবেন না রোহিত শর্মা, বিরাট কোহলি, ঋশভ পান্ট, হার্দিক পান্ডিয়া, যশপ্রিত বুমরাহর মতো তারকা ক্রিকেটাররা। নাম প্রকাশ না করা ওই ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তা জানান, “আমাদের অন্য কোন অপশন হাতে নেই। আমরা ইংল্যান্ড সিরিজের প্রস্তুতির ঝুঁকি নিতে পারি না এবং ক্রিকেটারদের পক্ষেও একসঙ্গে দুইবার কোয়ারেন্টিনে থাকা সম্ভব নয়। যদি এশিয়া কাপ আয়োজনের সিদ্ধান্ত নেওয়া হয় তাহলে দ্বিতীয় সারির দল পাঠানো ছাড়া আর কোন অপশন নেই।” এ বছর ব্যস্ত সময় কাটাবে ভারত। এপ্রিলে আইপিএল শুরু হয়ে শেষ হবে মে-এর শেষদিকে। তারপরই টেস্ট চ্যাম্পিয়নশিপের ফাইনাল খেলতে ইংল্যান্ড উড়াল দিবে কোহলিরা। ২২ জুন ফাইনাল ম্যাচ শেষ হলেও তখনই দেশে ফিরবে না ভারত দল। আগস্টে শুরু হতে যাওয়া ইংল্যান্ডের বিপক্ষে টেস্ট সিরিজ খেলতে সেখানেই থাকবেন কোহলিরা। ফলে এই ঠাসা সূচিতে দ্বিতীয় সারির দল পাঠানো ছাড়া আর কোন অপশন হাতে নেই বিসিসিআইয়ের। তবে শেষ পর্যন্ত যদি না গড়ায় তাহলে পরের বছর আইপিএলের পর আয়োজন করা হতে পারে টুর্নামেন্টটি। সেক্ষেত্রে টুর্নামেন্টটির আয়োজক হবে পাকিস্তান।

 

 

Share.

Leave A Reply