আটঘরিয়ার ঘরবধূ আখি হত্যার বিচার চান পরিবারের সদস্যরা আত্মহত্যা করেছে দাবি শ^শুরবাড়ির

0

স্টাফ রিপোর্টার : যৌতুকের দাবিতে শ^শুর বাড়ির লোকজনের মারধরের পরে মুখে বিষ ঢেলে হত্যার শিকার হয় আখি বলে অভিযোগ। পেরিয়ে গেছে পাঁচ বছর। একমাত্র সন্তান আখি হত্যার বিচার পাননি আটঘরিয়ার চাঁদভা ইউনিয়নের কুষ্টিয়া পাড়ার হতভাগ্য দরিদ্র পিতা আতাউর হক। তবে আজো সে বিশ^াসী যে অন্যায়ভাবে যারা তার মেয়েকে হত্যা করেছে তাদের বিচার হবেই। ২০১৫ সালের ২০ জানুয়ারি যৌতুকের দাবিতে আখিকে বেধরকভাবে মারধরের পরে গলার ভেতরে জোরপূর্বক কীটনাশক ঢুকিয়ে দিয়ে গিলে ফেলতে বাধ্য করে স্বামী ও শ^শুরবাড়ির লোকজন বলে অভিযোগ তার পরিবারের।২০১১ সালের ২৩ সেপ্টেম্বর কদমডাঙ্গা গ্রামের আজগর সরদারের ছেলে আব্দুস সাত্তার সরদারের সাথে বিয়ে হয় আখির। কদমডাঙ্গা গ্রামে একান্নবতি পরিবারে অবস্থান করা ঘরবধূ আখির জীবনের শুরু থেকেই নেমে আসে যৌতুকের কালো থাবা। শ^শুড় স্বামী শ^াশুড়ি ২ লাখ টাকা যৌতুকের দাবিতে চাপ প্রয়োগ করতে থাকে তাকে অবিরত। পিতা গরিব মানুষ টাকা দেওয়ার ক্ষমতা নেই জানালে আখির ওপরে মেনে আসে কঠোর নির্যাতন। এরই এক পর্যায়ে তাকে নির্মমতার শিকার হয়ে নিজের জীবনকে দিয়ে দিতে হয় যৌতুক নামের অভিশাপের বলিতে। পাবনা সদর হাসপাতালে নেওয়ার পথে মৃত্যু হয় আখির। ঐ সময়ে থানা পুলিশ মামলা গ্রহন করেনি বলে অভিযোগ করে আখির পিতা জানান, পরবর্তিতে তার স্ত্রী (আখির মা) জয়নব খাতুন বাদী হয়ে জেলা নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আদালতে মামলা (নম্বর-২৩৭/২০১৫) দায়ের করেন। মামলার আসামিরা হলেন কদমডাঙ্গা গ্রামের আজগর সরদারের ছেলে আব্দুস সাত্তার সরদার, মরহুম আব্বাস সরদারের ছেলে আজগর সরদার, আজগর সরদারের স্ত্রী মর্জিনা খাতুন এবং সিংগুরিয়া গ্রামের রহমত আলীর স্ত্রী হাসি খাতুন। আখি মৃত্যুর ঘটনার পরে আটঘরিয়া থানা পুলিশ ঐদিন একটি অপমৃত্যু মামলা (নম্বর-০২/১৫) রুজু করে। যা কোনভাবেই মানতে রাজি নন আখির পিতা আতাউর রহমান। ঐ সময়ে থানাতে এজাহার দিতে গেলে থানা পুলিশের পক্ষ থেকে এজাহার না গ্রহন করে আদালতে মোকদ্দমা করার জন্য পরামর্শ দেওয়া হয় বাদীনি জয়নব খাতুনকে। তবে এবিষয়ে আটঘরিয়া থানা পুলিশ জানায়, ২০১৫ সালের ২০ জানুয়ারিতে আখির পিতা আতাউর হক থানাকে লিখিতভাবে জানিয়েছেন যে সাংসারিক বিভিন্ন বিষয় নিয়ে আমার মেয়ে আখির সাথে স্বামী ও পরিবারের সদস্যদের কথা কাটাকাটি হয়। এরই প্রেক্ষিতে পরিবারের সকল সদস্যদের অগোচরে সে কীটনাশক পান করে ছটফট করতে থাকে। তার এ অবস্থা দেখে তার স্বামী ও শ^শুরবাড়ির লোকজন উন্নত চিকিৎসার জন্য প্রথমে আটঘরিয়া স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করে। পরবর্তিতে পাবনা সদর হাসপাতালে নেওয়ার পথে সে মারা যায়। থানা পুলিশ জানায়, সে তো থানাতে আবেদনপত্রে লিখেছে যে তার মেয়ে সকলের অগোচরে কীটনাশক পান করেছে। তবে এবিষয়ে আতাউর জানান, আমি মুর্খ মানুষ। লেখাপড়া জানিনা থানা থেকে যা লেখতে বলছে তাই লিখেছি। এখন পরে লোকজনের মাধ্যমে জানি যে এটা লেখা হয়েছে। তবে তিনি বলেন, তার মেয়েকে হত্যা করা হয়েছে এবং মেয়ে হত্যার বিচার চান তিনি। তার স্ত্রী আদালতে মামলা করলেও এতোদিন পার হলেও কেউ গ্রেফতার হয়নি। বরং তারা বিভিন্ন স্থানে বলে বেড়াচ্ছে যে এই মামলা ঠিক হয়ে গেছে, আমরা আপোস করে ফেলেছি। সব মিলিয়ে কিছুই বুঝে উঠতে পারছেন না দরিদ্র ও লেখাপড়া না জানা আতাউর হক। তিনি আখি হত্যার ঘটনার প্রকৃত তদন্ত করে দোষীদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবি জানান। এদিকে আখির ভাসুর আব্দুর রাজ্জাক জানান, ঘটনাটি এখন মীমাংসিত বিষয়। ময়নাতদন্ত রিপোর্ট এ দেখা গেছে আখি কীটনাশক পানে আত্মহত্যা করেছে এবং তার শরীরে কোন ধরনের আঘাতের দাগও নেই। এরপরও আখির পিতা নানাভাবে পাগলামি করে আমাদেরকে নাজেহাল করার চেষ্টা করছে। হঠাৎ হঠাৎ করেই সে বিষয়টি তুলে ধরে নানাজনের কাছে অহেতুক আবোল তাবোল কথা বলে বিভ্রান্তির সৃষ্টি করছে। এতে তারা পারিবারিকভাবে খুবই বিব্রতকর অবস্থায় পড়েছেন।

Share.

Leave A Reply